ঈমানের বিষয় কী কী?- ধারাবাহিকের শেষ পর্ব

0
342
Iman 7
Iman 7

সাত. মৃত্যুর পর পুনরায় জীবিত হওয়ার ওপর ঈমান
মৃত্যুর পর পুনরায় জীবিত হওয়ার ওপর ঈমান আনার অর্থ হচ্ছে, আমাদের বর্তমান জীবন পরীক্ষার নিমিত্ত। মৃত্যুর পর আল্লাহ তা’আলা আমাদেরকে পুনরায় জীবিত করে এই জীবনের সকল বিষয়ের হিসাব নিবেন। মৃত্যুর পর একটি রয়েছে কবরে সাময়িক ফল ভোগের বরযখী যিন্দেগী। আর পরবর্তীতে কিয়ামত সংঘটিত হওয়ার পর আসবে পরকালীন প্রকৃত যিন্দেগী।
পূর্ণাঙ্গ হিসাব-কিতাবের পর বান্দার জন্য নির্ণিত হবে বেহেশত বা দোযখের সেই অনন্ত যিন্দেগী।
কিয়ামতের আগেই মুনকার-নাকীরের প্রশ্নোত্তরের পর কবরের ভিতরে নেককারদের জন্য শান্তি ও আরামের ব্যবস্থা করা হয় এবং বদকারদের জন্য আযাব শুরু হয়ে যায়।
কবর দ্বারা উদ্দেশ্য আলমে বরযখ অর্থাৎ দুনিয়া ও আখিরাতের যিন্দেগীর মধ্যবর্তী যিন্দেগী। সকল মানুষ মৃত্যুর পর সেখানেই পৌঁছে যায়, চাই তাকে কবর দেওয়া হোক বা নাই হোক। যথা- অনেককে বাঘ বা কোনো হিংস্র প্রাণী খেয়ে ফেলে, কেউ আগুনে জ্বলে ছারখার হয়ে যায় অথবা পানিতে ডুবে হারিয়ে যায়। তারাও সেখানে উপস্থিত হয়।

কবর বলে মূলত এই জগতকেই বোঝানো হয়। নেক লোকদের জন্য কবর জান্নাত বা বেহেশতের একটা অংশ হয়ে যায়। তারা সেখানে আরামের সাথে অবস্থান করতে থাকে। মৃত ব্যক্তির জন্য দো’আ করলে বা কিছু সদকা করলে, সে তা পেয়ে খুশি হয় এবং তাতে তার অনেক উপকার হয়।
উল্লেখ্য, ঈমানে মুফাসসালের এই অংশটি ভিন্ন কোনো বিষয় নয়, বরং ৫ নং বিষয় অর্থাৎ কিয়ামতের ওপর ঈমান আনারই একটি স্তর; কিন্তু বিষয়টি জটিল ও সূক্ষ্ম হওয়ায় ভালোভাবে বোঝানোর লক্ষ্যে আলাদা ধারার মাধ্যমে উল্লেখ করা হয়েছে।

কুরআনের বর্ণনায় মৃত্যুর পর পুনরায় জীবিত হওয়া
كَيْفَ تَكْفُرُونَ بِاللَّهِ وَكُنتُمْ أَمْوَاتًا فَأَحْيَاكُمْ ثُمَّ يُمِيتُكُمْ ثُمَّ يُحْيِيكُمْ ثُمَّ إِلَيْهِ تُرْجَعُونَ-
অর্থঃ তোমরা কীভাবে আল্লাহ তা’আলাকে অস্বীকার করছো? অথচ তোমরা ছিলে নি®প্রাণ। অতঃপর তিনিই তোমাদেরকে জীবন দান করেছেন আবার তিনিই তোমাদেরকে মৃত্যু দান করবেন।
এরপর পুনরায় তিনিই তোমাদেরকে জীবিত করবেন। অতঃপর তোমরা সবাই তাঁর কাছেই প্রত্যাবর্তন করবে। (সূরা বাকারা-২৮)
وَأَنَّ السَّاعَةَ آتِيَةٌ لَّا رَيْبَ فِيهَا وَأَنَّ اللَّهَ يَبْعَثُ مَن فِي الْقُبُورِ-
অর্থঃ কিয়ামত অবশ্যই আসবে; এতে কোনো সন্দেহ নেই। তখন আল্লাহ তা’আলা কবরবাসীদেরকে পুনরুত্থিত করবেন। (সূরা হজ্জ-৭)
ثُمَّ إِنَّكُمْ يَوْمَ الْقِيَامَةِ تُبْعَثُونَ-
অর্থঃ অতঃপর তোমরা কিয়ামতের দিনে পুনরুত্থিত হবে। (সূরা মুমিনুন-১৬)
زَعَمَ الَّذِينَ كَفَرُوا أَن لَّن يُبْعَثُوا قُلْ بَلَىٰ وَرَبِّي لَتُبْعَثُنَّ ثُمَّ لَتُنَبَّؤُنَّ بِمَا عَمِلْتُمْ وَذَٰلِكَ عَلَى اللَّهِ يَسِيرٌ-
অর্থঃ কাফিরগণ দাবি করে যে, তারা কখনো পুনরুত্থিত হবে না। আপনি বলে দিন- অবশ্যই হবে। আমার রবের কসম! তোমরা অবশ্যই পুনরুত্থিত হবে। অতঃপর তোমাদেরকে অবহিত করা হবে ওই বিষয়ে, যা তোমরা করতে। এটা আল্লাহ তা’আলার পক্ষে খুবই সহজ। (সূরা তাগাবুন-৭)
وَقَالُوا أَإِذَا كُنَّا عِظَامًا وَرُفَاتًا أَإِنَّا لَمَبْعُوثُونَ خَلْقًا جَدِيدًا- قُلْ كُونُوا حِجَارَةً أَوْ حَدِيدًا- أَوْ خَلْقًا مِّمَّا يَكْبُرُ فِي صُدُورِكُمْ فَسَيَقُولُونَ مَن يُعِيدُنَا قُلِ الَّذِي فَطَرَكُمْ أَوَّلَ مَرَّةٍ فَسَيُنْغِضُونَ إِلَيْكَ رُءُوسَهُمْ وَيَقُولُونَ مَتَىٰ هُوَ قُلْ عَسَىٰ أَن يَكُونَ قَرِيبًا- يَوْمَ يَدْعُوكُمْ فَتَسْتَجِيبُونَ بِحَمْدِهِ وَتَظُنُّونَ إِن لَّبِثْتُمْ إِلَّا قَلِيلًا-
অর্থঃ তারা বলে- যখন আমরা অস্তিত্বহীন ও চূর্ণ-বিচূর্ণ হয়ে যাবো, তখন কী করে আমরা পুনরুত্থিত হবো?
আপনি বলে দিন- তোমরা যদিও পাথর হয়ে যাও অথবা লোহা অথবা এমন কোনো বস্তু, যা তোমাদের ধারণা অনুযায়ী খুবই কঠিন; তবু আল্লাহ তা’আলা তোমাদেরকে পুনরুত্থিত করবেন।
এরপরেও তারা বলবে- আমাদেরকে পুনরায় কে সৃষ্টি করবে? আপনি বলে দিন- যিনি তোমাদেরকে প্রথমবার সৃষ্টি করেছেন। তখন তারা আপনার সামনে মাথা নেড়ে নেড়ে বলবে- এটা কবে হবে?
আপনি বলে দিন- শীঘ্রই হবে, যেদিন তিনি তোমাদেরকে আহবান করবেন। ওই সময় তোমরা তাঁর প্রশংসা করতে করতে চলে আসবে আর তোমরা অনুমান করবে যে, যেনো তোমরা খুবই সামান্য সময় অবস্থান করছিলে! (সূরা বনী ইসরাঈল-৪৯-৫২)
قُلْ يَتَوَفَّاكُم مَّلَكُ الْمَوْتِ الَّذِي وُكِّلَ بِكُمْ ثُمَّ إِلَىٰ رَبِّكُمْ تُرْجَعُونَ-
অর্থঃ বলুন- তোমাদের প্রাণ হরণের দায়িত্বে নিয়োজিত ফিরিশতা তোমাদের প্রাণ হরণ করবে। অতঃপর তোমরা তোমাদের পালনকর্তার কাছে প্রত্যাবর্তিত হবে। (সূরা সাজদাহ-১১)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.