করোনা ভাইরাসঃ হৃদয় নিংড়ানো অভিব্যক্তি- শায়খ আবু তাহের মিসবাহ

0
790
Shaykh M. Abu Taher Misbah Hafizahullah
Shaykh M. Abu Taher Misbah Hafizahullah

করোনাভাইরাস নামে আমাদের পুরো বিশ্বের উপর একটি আজাব চলে এসেছে। আমরা প্রত্যেকটা মানুষ যার যার অবস্থান অনুযায়ী গাফিলতির ভিতর ডুবে আছি। আওয়ামের গাফিলতি একরকম, তালিবুল ইলমের গাফিলতি আরেক রকম, ওলামাদের গাফিলতি একরকম, আবার খাছ ওলামায়ে কেরামের গাফিলতি আরেক রকম। প্রত্যেকের অবস্থান অনুযায়ী তার গাফিলতির অবস্থা ও ভিন্ন ভিন্ন রকম। আর আল্লাহ পাক গাফেলকে খুব অপছন্দ করেন। এই গাফিলতির কারণে হয়তো আমাদের উপর এই আজব আসছে।

এই আজব যখন আসে তখন আমরা খুব বলেছিলাম যে, চায়নাতে কাফেররা মুসলমানদের কষ্ট দিয়েছে বিধায় তাদের উপর এই আযাব চলে এসেছে। কিন্তু এই কথা বলার হক কি আমাকে আল্লাহ দিয়েছেন কি না, এটা আমরা কখনো ভাবি না। চায়নার কাফেররাও আল্লাহর বান্দা, আল্লাহ তার বান্দাকে শাস্তি দিবেন কি দিবেন না এটা আল্লাহর মর্জি। এই ব্যাপারে ঘোষণা দেওয়া, তাদেরকে কটাক্ষ করা, তিরস্কার করা, এই অধিকারতো আল্লাহ তায়ালা আমাকে দেন নাই। আমরা খুব আসানির সাথে বলে যাই যে, চায়নাতে কাফেরদের নাফরমানীর কারণে আল্লাহ পাক তাদের আজব দিয়েছেন; কিন্তু আমিও তো আমার অবস্থান অনুযায়ী আল্লাহর নাফরমানীতে লিপ্ত আছি। কাফেররা কাফেরদের অবস্থান অনুযায়ী খোদার গাফিলতিতে লিপ্ত আর আমরা মুসলমান হয়ে আমাদের অবস্থান অনুযায়ী আমাদের গাফিলতিতে লিপ্ত। কিন্তু যখন আজব আসে, আমরা বলি- অমুকের জন্যই এই আজাব হচ্ছে, তো তমুকের জন্যই হচ্ছে। নিজের অপরাধের অনুভূতি আমাদের কারো নেই।

lockdown 1
lockdown

নিজেকে অপরাধী মনে করা এটাও একটি নবীওয়ালা সিফত। নবীরা সব সময় সামান্য একটু কিছুতেই আল্লাহর কাছে ইস্তেগফার করতেন, তওবা করতেন। কিন্তু নিজেদেরকে অপরাধী মনে করে তওবা করা, আমরা আজ এই আমলটা করি না। কোন একটা সমস্যা আসলে আমরা অন্যের দোষ দিতে থাকি; কিন্তু আমি এই অপরাধে আমার অবস্থান অনুযায়ী কিছুটা শামিলা থাকতেও পারি- এটা আমরা চিন্তা করি না।
মা তার সন্তানকে অনেক কিছু বলে বকা দেয়, শাসন করে, এমনকি রাগ করে কিছু গালি দিতেও পারে। কিন্তু এটা যদি অন্য কেউ করে, মা কিন্তু সেই ব্যক্তি কে ছেড়ে দেন না। কারণ মা তার সন্তানকে বকাঝকা করবে- এটা মায়ের অধিকার। অন্য কারো এখানে কিছু বলার অধিকার নেই। সন্তানকে শাসন করার অধিকারে সাধারণ মা যদি এমন হয়, তাহলে আল্লাহ কেমন হবেন। আল্লাহ তাঁর নাফরমান বান্দা শাস্তি দিচ্ছেন- এটা আল্লাহর হক এটা আল্লাহর ইচ্ছা; কিন্তু আমি এখানে বলার কে। আমারও ভাবা উচিত যে, আমি এই কথা বলার দ্বারা সেই মায়ের নারাজির অন্তর্ভুক্তি হওয়ার মত কি আল্লাহ নারাজির এর অন্তর্ভুক্তি হয়ে গেলাম নাতো।

আগের আকাবিরীনরা যখনই দেশের প্রতি কোনো বিপদ এসেছে, বিশ্বের প্রতি কোনো বিপদ নেমে আসছে, আজাব নেমে আসছে, তখন সকল আওয়ামদেরকে নিয়ে তাওবা করতেন। কিন্তু এখন সেই আকাবিররা চলে গিয়েছেন, যার ফলে আমাদের নিয়ে ওইভাবে এখন আর কেউ তাওবা করেন না। আমরা যে প্রত্যেকে যার যার অবস্থান অনুযায়ী গাফিলতির মধ্যে ডুবে আছি- এই কথাটা আমরা বুঝতেও পারিনা। শুধু অন্যের গাফিলতি আমাদের দৃষ্টিতে আসে; নিজের কথা আমরা চিন্তা করি না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.