মিরাজের সময় ও তারিখ কি নির্দিষ্ট? একটি বিশ্লেষণ- আব্দুল্লাহ আল মাসুম

0
327
Mirazun Nabi S.M.
Mirazun Nabi S.M.

এমন বিস্ময়কর বিরল ঘটনা কবে ঘটেছিলো? এর দিন তারিখ নির্ধারণের ব্যাপারে কয়েকটি মতামত রয়েছে। কিন্তু যে দুটি বিষয়ে অন্তত সবাই একমত তা হলো- মিরাজের ঘটনা হিজরতের আগে ঘটেছিলো। আর দ্বিতীয় বিষয়টি হলো- খাদীজা রাযি.-এর মৃত্যুর পর এ ঘটনাটি ঘটেছিলো।

ইমাম কুরতুবি রহ. স্বীয় তাফসীর গ্রন্থে লিখেছেন-
মিরাজের তারিখ সম্পর্কে বিভিন্ন রকমের বর্ণনা এসেছে। মুসা ইবনে উকবার বর্ণনা অনুযায়ী মিরাজের ঘটনা হিজরতের ছয় মাস আগে সংঘটিত হয়। উ¤মূল মুমিনীন আয়েশা রাযি. বলেন- খাদীজা রাযি.-এর ওফাত সালাত ফরয হওয়ার আগেই হয়েছিলো। ইমাম যুহরি বলেন- খাদীজা রাযি.-এর ওফাত নবুয়তের সাত বছর পরে হয়েছিলো।
এছাড়া কোনো কোনো বর্ণনায় বলা হয়েছে- মিরাজের ঘটনা নবুয়তপ্রাপ্তির পাঁচ বছর পরে সংঘটিত হয়েছে।
ইবনে ইসহাক বলেন- মিরাজের ঘটনা ওই সময়ে সংঘটিত হয়, যখন আরবের সাধারণ গোত্র সমূহে ইসলামের বাণী ছড়িয়ে পড়েছিলো।
হারবি বলেন- ইসরা ও মিরাজের ঘটনা রবীউস সানী মাসের ২৭ তম রাতে হিজরতের এক বছর আগে সংঘটিত হয়।
ইবনে কাসিম যাহবী বলেন- নবুয়তপ্রাপ্তির ১৮ মাস পরে মিরাজ হয়; কিন্তু এ বক্তব্য সঠিক নয়।
তবে যেহেতু সর্বসম্মতিক্রমে নবুয়তের ১৩তম বছরে নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্ল¬াম মদীনা মুনাওয়ারায় হিজরত করেন এবং সহীহুল বুখারীতে আয়েশা রাযি.-এর বর্ণিত হাদীস অনুযায়ী হিজরতের তিন বছর আগে খাদীজা রাযি.-এর ইনতিকাল হয়েছিলো এবং অন্য এক রেওয়ায়াত অনুযায়ী তা পাঁচ ওয়াক্ত সালাত ফরয হওয়ার আগে হয়েছিলো; সুতরাং মিরাজের ঘটনা হিজরতের আগের তিন বছরের মধ্যেই সংঘটিত হয়েছিলো।

সীরাত এবং ইতিহাসের কিতাবসমূহ সাক্ষ্য দেয় যে, মিরাজ এবং হিজরতের মধ্যে তেমন কোনো গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ঘটেনি এবং একটু ভেবে দেখলে এ দুটো ঘটনার মধ্যে গভীর যোগসূত্র খুঁজে পাওয়া যায়। তাই নিঃসন্দেহে বলা যায়, মিরাজের ঘটনা হিজরতের খুব কাছাকাছি সময়ে ঘটেছিলো।
খুব সম্ভবত এ কারণেই ইবনে সাদ তাঁর ‘তাবাকাত’ নামক গ্রন্থে এবং ইমাম বুখারী রহ. তার সহীহ বুখারীতে মিরাজ এবং হিজরতের ঘটনার মধ্যে অন্য কোনো ঘটনা প্রবেশ না করিয়ে দুটোকেই পাশাপাশি বর্ণনা করেছেন। যারা ইমাম বুখারী রহ.-এর শিরোনাম এবং অধ্যায় সাজানোর সূক্ষ নিয়ম সম্পর্কে অবগত- তারা জানেন যে, ‘সহীহুল বুখারী’ গ্রন্থে বর্ণিত ঘটনাবলীর ধারাবাহিকতা এগুলোর পারস্পরিক সম্পর্ক এবং পাশাপাশি সংঘটিত হওয়ার প্রমাণ বহন করে।
সুতরাং আমরা খুব সহজেই বলতে পারি, যেসব সীরাত গবেষক এবং ইতিহাসবিদ বলেছেন- মিরাজের ঘটনা হিজরতের এক অথবা দেড় বছর আগে সংঘঠিত হয়েছিলো, তাদের এমন দাবি অবশ্যই গবেষণামূলক এবং সঠিক।
মিরাজের মাস এবং তারিখ নিয়েও নানা মত রয়েছে। কোনো কোনো বর্ণনায় বলা হয়েছে, মিরাজ রবীউল আওয়াল মাসে সংঘটিত হয়। আবার কোনো কোনো বর্ণনায় রজব মাসের কথাও এসেছে। আবার অন্য মাসেরও কথা কোনো কোনো জায়গায় বলা হয়েছে। এ সব বর্ণনার কোনোটাই প্রমাণিত নয়।

হাদীসের ইমামগণ মিরাজের তারিখ সম্পর্কে বিভিন্ন বর্ণনা উল্লেখ করার পর কোনো তারিখের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত দেননি। যদিও সাধারণভাবে রজবের ২৭ তারিখের রাতকে মিরাজের রাত্রি বলা হয়। তাছাড়া সুনির্দিষ্টভাবে ২৭ রজব সম্পর্কে ইমাম ইবরাহীম হারবী এবং ইবনে রজব রহ. স্পষ্ট করে বলেছেন যে, এ রাতে মিরাজ সংঘটিত হওয়ার কথাটি সঠিক নয়। (লাতায়েফুল মা’আরিফঃ ১৩৪)
মিরাজের তারিখ সম্পর্কে কোনো কোনো বই-পুস্তিকায় স্পষ্টভাবে লেখা রয়েছে এবং সাধারণ জনগণের মাঝে তা প্রসিদ্ধও বটে যে, মি’রাজের ঘটনা রজব মাসের ২৭ তারিখে সংঘটিত হয়েছিলো। কিন্তু এটা মনে রাখা জরুরি যে, এ কথাটি জনগণের মাঝে শুধু ইতিহাসের একটি বর্ণনার ভিত্তিতে প্রসিদ্ধি লাভ করেছে- যার সনদ সহীহ নয়। অন্যথায় এটি কোনো নির্ভরযোগ্য ইতিহাস দ্বারাও প্রমাণিত নয়; হাদীসে নববী কিংবা কোনো সাহাবীর উক্তি দ্বারা তো নয়ই। নির্ভরযোগ্য সূত্রে শুধু এতটুকুই পাওয়া যায় যে, মি’রাজের ঘটনা হিজরতের এক বা দেড় বছর আছে সংঘটিত হয়েছিলো। কিন্তু মাস-দিন অথবা তারিখের ব্যাপারে নির্ভরযোগ্য কোনো প্রমাণ নেই।
কোনো আলিম বলেছেন- মি’রাজের রাত নিঃসন্দেহে একটি বরকতময় রাত ছিলো। কিন্তু এই রাতে যেহেতু বিশেষ কোনো আমল কিংবা ইবাদত উম্মতের জন্য বিধিবদ্ধ হয়নি, তাই এর দিন তারিখ সুনির্দিষ্টভাবে সংরক্ষিত থাকেনি।

মোটকথা, রজব মাসে মিরাজের নির্দিষ্ট কোনো তারিখের কথা উল্লেখ নেই, তবে রজব মাসেই যে মিরাজ সংঘটিত হয়েছে- এ ব্যাপারে সন্দেহের কোনো অবকাশ নেই।
(আল-মাওয়াহিবুল লাদুন্নিয়াহ ও শরহুল মাওয়াহিবিল লাদুন্নিয়াহ- ইমাম ইবনে কাছীরঃ ২/৪৭১; লাতাইফুল মা’আরিফ- ইমাম ইবনে রজব- ১৩৪; ইসলাহী খুতুবাত- মুফতী মুহাম্মাদ তাকী উসমানীঃ ১/৪৬-৪৮)

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.